বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৪৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ঘোষণা :

বেঁচে থাকার জন্য ১টি ঘরের আকুতি সাবেক ইউপি সদস্য রাসিদা বেগমের

মোঃনাসির উদ্দীন/ গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর গলাচিপায় বেঁচে থাকার মতো ঘর পাওয়ার আকুতি জানিয়েছেন উপজেলার আমখোলা ইউনিয়নে বাঁশবাড়িয়া গ্রামের সাবেক মহিলা ইউপি সদস্য রাসিদা বেগম (৫০)।

ইউপি সদস্য রাসেদা বেগম বলেন, দীর্ঘদিন পর্যন্ত আমি সংরক্ষিত মহিলা আসনে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়ে জনগণের সেবায় নিয়োজিত ছিলাম। আমার স্বামী আওয়ামী লীগের একজন নিবেদিত কর্মী এবং স্থানীয় জনসাধারণের কাছেও ছিলেন যথেষ্ট সুপরিচিত। বর্তমানে আমি খুব অসুবিধার মধ্যে আছি। আমার মাথা গোঁজার ঠাই নাই।

মুদির হাট বাজারে দীর্ঘ ২০ বছর ধরে স্বামী সন্তান নিয়ে আশ্রিত ছিলাম। আমার স্বামীর মৃত্যুর পরে আমি অসহায় দিনযাপন করছি।এখন আমি সন্তানদের নিয়ে কোথায় যাব বুঝতে পারছি না।

খোঁজ নিয়ে দেখা যায় সাবেক মহিলা ইউপি সদস্য রাসিদা বেগম স্বামী মারা যাবার পর থেকে সন্তান নিয়ে প্রতিবেশি ও আত্বীয়র বাড়িতে বাড়িতে দিন পার করছেন। বর্তমানে যে স্থানে আছেন সাবেক ইউপি সদস্য রাসিদা বেগম দেশে চলমান মহামারী করোনাকালে নানান প্রকার সমস্যা চলমান থাকায় সেখানকার আশ্রয়দাতা অন্য কোথাও চলে যেতে বলছেন প্রতিনিয়ত ।

ইউপি সদস্য রাসিদা বেগম কান্না ভরা কন্ঠে বলেন দেশ নেত্রী বঙ্গমাতা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা কতিৃক জাতরি জনক বঙ্গবন্ধুর জন্ম শত বার্ষিকী ‍উপলক্ষ্যে উপহার আশ্রায়ণ প্রকল্প ২ এর অনূকুলে আমাকে একটি ঘর দিলে সন্তানদের নিয়ে বেঁচে থাকার মতো একটি আশ্রয় হতো।

বাঁশবাড়িয়া স্থানীয় বাসিন্ধাদের কাছ থেকে জানা যায়, তার স্বামী সুলতান হাওলাদারের ফুসফুসের ক্যান্সার নিয়ে মৃত্যু বরণ  করেন।স্বামীর মৃত্যুর পর সংসারের ঘানি টানতে গিয়ে নিস্ব হয়ে মানবতারে জিবন পার করছেন সাবেক এই মহিলা ইউপি সদস্য রাসিদা বেগম । নিজের জায়গা জমি বলতে মাত্র তিন শতক জমি। যা এখনো শূন্য ভীটা পরে আছে।

রাসিদা বেগম এ তথ্য দেয়ার সময় কান্নাজরা কন্ঠে বলেন, কোন কোন সময়ে না খেয়েও দিন পার করতে হয়, লোকলজ্জায় বলতেও পারি না

এ বিষয়ে ইউপি সদস্য মো. বাদল মিয়া বলেন, রাসিদা বেগম স্বামীর চিকিৎসা করাতে গিয়ে সবকিছু হারিয়ে নিস্ব হয়ে গেছেন। স্বামীর মৃত্যুর পরে সে এখন অসহায় দিন কাটাচ্ছেন। সরকারিভাবে তার জন্য একটি ঘরের বরাদ্দ দেওয়া হলে সে সন্তানদের নিয়ে বাকি জীবনটা পার করতে পারতেন।

ইউপি চেয়ারম্যান মো. কামরুজ্জামান মনির বলেন, সংরক্ষিত আসনের সাবেক ইউপি সদস্য রাসিদা বেগম স্বামীর মৃত্যুর পরে অসহায় হয়ে পড়েছে। তার জমি আছে কিন্তু ঘর নেই। আমি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি হিসেবে মমাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা কতিৃক জাতরি জনক বঙ্গবন্ধুর জন্ম শত বার্ষিকী ‍উপলক্ষ্যে উপহার আশ্রায়ণ প্রকল্প ২ এর মাধ্যমে সাবেক ইউপি সদস্য রাসিদা বেগম জেন ১টি ঘর পায় আমি তার সার্বিক সহযোগীতা করবো।



All Bangla Newspaper
ফেসবুকে আমরা

error: Content is protected !!