মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১২:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
পটুয়াখালীতে প্রগতি লেখক সংঘের কবি আড্ডা অনুষ্ঠিত গলাচিপায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আহসানুল হক তুহিন পুনরায় নির্বাচিত খালেদা জিয়াকে স্লো পয়জনিং বিএনপির লোকেরাই করতে পারে : কাদের নৌকার বিপক্ষে একটা ভোট গেলে লাশ পড়বে ৫টা, ছাত্রলীগ নেতার হুমকি জয়পুরহাট-সহ উত্তরের জেলা গুলোতে জেঁকে বসেছে শীত ও ঘন কুয়াশা! নওগাঁয় ভোটের মাঠে চেয়ারম্যান পদে পঞ্চমুখী লড়াই  ডিমলা উপজেলার কৃষকরা ভুট্টা চাষে আগ্রহী  গলাচিপা পৌরসভা নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর সমর্থনে কেন্দ্রীয় সেচ্ছাসেবক লীগের জনসংযোগ।  লক্ষ্মীপুরে বাবা চেয়ারম্যান, চার ভাইবোন হতে চান মেম্বার ‘মু‌জিব কোট খুইল্লা ও‌সিরে গুতাই‌ছি’
ঘোষণা :

বদলগাছীতে বিদ‍্যালয়ের মাঠ দখল করে নির্মাণ সামগ্রী রাখার অভিযোগ

“ঠিকাদারের কান্ড দেখে বিব্রত শিক্ষার্থীরা “” বিদ্যালয়ের খেলার মাঠ দখল করে নির্মাণ সামগ্রী
রাখার অভিযোগ “”
বদলগাছী (নওগাঁ) প্রতিনিধি:- নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার পাহাড়পুর আধিবাসী উচ্চ বিদ‍্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের খেলার মাঠ ও বারান্দা দখল করে নির্মাণ সামগ্রী রেখেছে ঠিকাদার। বিষয়টি জানতে চাইলে সাংবাদিকদের উপড় ক্ষিপ্ত স্কুলের প্রধান শিক্ষক।
জানাযায়, বদলগাছী উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নের পাহাড়পুর আধিবাসী উচ্চ  বিদ্যালয়ের খেলার মাঠ ও স্কুলের বারান্দায়  প্রায় ৬ থেকে ৭ মাস ধরে স্কুলের ভবন তৈরির   নির্মাণ সামগ্রী ফেলে দখল করে রাখা হয়েছে। এতে স্কুলের স্বাভাবিক কার্যক্রম বিঘ্ন  ঘটছে। একই সঙ্গে স্কুলের শিক্ষার্থীদের মেধাবিকাশ ও ক্লাস রুমে চলাচল করতে পোহাতে হচ্ছে দূর্ভোগ।  স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী ও এলাকার তরুণরা খেলাধুলার সুযোগ থেকে বি ত হচ্ছে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিদ‍্যালয়ের নতুন অবকাঠামো তৈরির জন‍্য ঠিকাদার ইট, পাথর, রড, খোয়া, বালি, কাঠ ও বাঁশ সহ বিভিন্ন নির্মাণ সামগ্রী নিয়ে এসে বিদ‍্যালয়ের সমস্থ মাঠ , বারান্দা ও কিছু ক্লাস রুম  দখল করে রেখেছে। এরপর করোনাকালীন দীর্ঘ ছুটির পর গত মাসে স্কুল খুলে দেওয়া হলেও এখনো পর্যন্ত নির্মাণ সামগ্রীগুলো সরানো হয়নি স্কুল মাঠ থেকে।
মাঠ জুড়ে এসব নির্মাণ সামগ্রী ফেলে রাখায় বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সহ শিক্ষক-শিক্ষকাদের চলাচলের হচ্ছে বিভিন্ন ধরণের সমস‍্যা। প্রায় ঘটছে ছোট ছোট দুর্ঘটনা। নির্মাণ সামগ্রী রাখার ফলে শিক্ষার্থীসহ এলাকার উঠতি বয়সের কিশোর-তরুণরা খেলাধুলার সুযোগ থেকে বি ত হচ্ছে।
সুমি, রুমা, পলাশ, রায়হান সহ বেশ কিছু  বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী  জানান, ‘করোনার মধ্যে বাড়ি থেকে বের হতে পারিনি। এখন স্কুল চালু হওয়ায় আমরা খুব খুশি। কিন্তু মাঠ জুড়ে ঠিকাদারের নির্মাণ সামগ্রীর জিনিসপত্র রাখায় আমাদের সারাক্ষণ শ্রেণিকক্ষেই আটকে থাকতে হয়। টিফিন বা অন্য সময় দৌড়ঝাঁপ বা একটু খেলাধুলা করবো সে সুযোগ পাচ্ছিনা। আমরা স্কুলের প্রাধান শিক্ষককে বারবার বলেছি কিন্তু কোন কাজ হয়নি।  বলতে গেলেই তিনি বলেন আমাদের স্কুলের কাজ তাই সবাইকে সহযোগিতা করতে হবে।
স্থানীয় ক্রীড়ামোদি মিজান জানান, আগে আমরা মাঠে খেলাধুলা করতাম। কিন্তু মাঠটি এখন ঠিকাদারের দখলে থাকায় আমাদের খেলাধুলা চরমভাবে বিঘিœত হচ্ছে। মাঠে ইট, রড ও ইটের খোয়ার টুকরার কারণে খেলাধুলা করা যায় না ।
এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক মামুনুর রশিদের সাথে কথা বললে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ঠিকাদার বিদ্যালয়ের নতুন ভবন তৈরি করার জন্য নির্মাণসামগ্রী এনে বিদ‍্যালয়ের মাঠে রেখেছে তাতে আপনাদের সমস্যা কি। বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা খেলাধুলা করবে কি করবেনা সেটা আমরা বুঝবো। আপনি ক্ষিপ্ত হয়ে কথা বলছেন কেন ঠিকাদারের কাছে আপনার কোন স্বার্থ আছে   নাকি বলে প্রশ্ন করলে তিনি নরম শুরে বলে আমার কেন স্বার্থ  থাকবে।
পাহাড়পুর আদিবাসী উচ্চ বিদ‍্যালয়ের ম‍্যানেজিং কমিটির সভাপতি বদিউজ্জামান এর সাথে কথা বললে তিনি বলেন, বিষয়টি আমি নিজেও দেখেছি। গত মাসের ২২ তারিখে কাজ শুরুর কথা ছিল কিন্তু ঠিকাদার কাজ শুরু করেনি।
এ বিষয়ে জেলা শিক্ষা প্রকৌশল  অধিদপ্তরের  নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সাইদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, রাজস্ব থেকে অর্থ না পাওয়ায় ঠিকাদার কাজ করতে পারেনি। ঠিকাদার নির্মাণ সামগ্রী রেখে স্কুলের খেলার মাঠ দখল করে রেখেছে কেন বলে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, আমি ঠিকাদার কে আজই চিঠি দিয়ে বিষয়টি জানাবো।
তিনি আরো বলেন, ঠিকাদার স্কুলের খেলার মাঠে কেন নির্মাণ সামগ্রী রাখবে। তিনি অন্য জায়গা ভাড়া নিয়ে নির্মাণ সামগ্রী রাখবে। বিদ‍্যালয়ের সমস্যা কেন সৃষ্টি করবে। বিষয়টি তিনি দেখবেন বলে জানান।
এ ব‍্যপারে উপজেলা মাধ্যমিক  শিক্ষা কর্মকর্তা এ. টি. এম. জিল্লুর রহমান বলেন, মাঠে নির্মাণ সামগ্রী রাখায় শিক্ষার্থীদের খেলাধুলায় ব্যাঘাত ঘটছে। বিদ‍্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ঠিকাদারকে কয়েক দিন আগেও মালামাল সরিয়ে নিতে বলেছি। আমি আবারও তাদের সঙ্গে কথা বলব, যেন তারা দ্রুত সব কিছু সরিয়ে নেয়।



All Bangla Newspaper
ফেসবুকে আমরা
error: Content is protected !!