মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১১:১০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পটুয়াখালীতে প্রগতি লেখক সংঘের কবি আড্ডা অনুষ্ঠিত গলাচিপায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আহসানুল হক তুহিন পুনরায় নির্বাচিত খালেদা জিয়াকে স্লো পয়জনিং বিএনপির লোকেরাই করতে পারে : কাদের নৌকার বিপক্ষে একটা ভোট গেলে লাশ পড়বে ৫টা, ছাত্রলীগ নেতার হুমকি জয়পুরহাট-সহ উত্তরের জেলা গুলোতে জেঁকে বসেছে শীত ও ঘন কুয়াশা! নওগাঁয় ভোটের মাঠে চেয়ারম্যান পদে পঞ্চমুখী লড়াই  ডিমলা উপজেলার কৃষকরা ভুট্টা চাষে আগ্রহী  গলাচিপা পৌরসভা নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর সমর্থনে কেন্দ্রীয় সেচ্ছাসেবক লীগের জনসংযোগ।  লক্ষ্মীপুরে বাবা চেয়ারম্যান, চার ভাইবোন হতে চান মেম্বার ‘মু‌জিব কোট খুইল্লা ও‌সিরে গুতাই‌ছি’
ঘোষণা :

জয়পুরহাটে ২৮ বছর থেকে ইঁদুর ধরে জীবিকা নির্বাহ, পেয়েছেন জাতীয় পুরস্কার

জয়পুরহাটে ২৮ বছর থেকে ইঁদুর ধরে জীবিকা নির্বাহ, পেয়েছেন জাতীয় পুরস্কার

মোঃ জহুরুল ইসলাম, জয়পুরহাট জেলা প্রতিনিধিঃ- জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার কৃষকের বন্ধু আনোয়ার ২৮ বছর ধরে ইঁদুর ধরে জীবিকা নির্বাহ করছেন। আনোয়ার এ কাজে প্রয়োগ করছেন, নিজের আবিস্কৃত নানা কৌশল। ফসলের মাঠ আর বসত বাড়ির ইঁদুর নিধনের জন্য তাঁকে কেউ দেন চাল, কেউ দেন গম, কেউ দেন ডাল, কেউবা দেন অন্যান্য খাদ্য দ্রব্য; আবার কেউ কেউ টাকাও দিয়ে যাচ্ছে।

জানা গেছে, জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার তিলকপুর ইউনিয়নের ভট্টপশালী গ্রামের আনোয়ার হোসেন স্বীকৃতি স্বরূপ তিনি পেয়েছেন জাতীয় পুরস্কার। বয়স বাড়ার সাথে সাথে ফসল বিনাশী ইদুর শিকারে বেশ দক্ষ হয়ে ওঠেন আনোয়ার। নেশা থেকে একসময় ইঁদুর
বিনাশই হয়ে ওঠে তার পেশা, নাম ছড়িয়ে পড়ে ইঁদুর আনোয়ার হিসেবে। দূর দূরান্ত থেকে আনোয়ারের ডাক আসে ইঁদুর পাকড়াও করার জন্য। যে কোনো ধরনের ফসল ক্ষেত, বাড়ি বা গাছের ইঁদুর ধরতে সিদ্ধহস্ত আনোয়ার। নিজের বুদ্ধিতে উদ্ভাবন করেছেন বালু আর পাইপের ফাঁদ। এখন গ্রামের উৎসাহীদের ইদুর নিধনের প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন আনোয়ার। ইতিমধ্যে অর্ধশত মানুষ তার কাছে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন।

আরও পড়ুন:- জয়পুরহাট শহীদ জিয়া কলেজের নাম পরিবর্তনের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

                         জয়পুরহাটে আগাম জাতের আলু চাষে ব্যস্ত কৃষক!

কৃষকের বন্ধু আনোয়ার জানান, ইঁদুর নিধনের জন্য তিনি স্থানীয় এবং জাতীয়ভাবে পুরস্কৃত হয়েছেন। পেয়েছেন নানা পদক আর সনদ। ২০০৪ সালে ২৩ হাজার ৪৫১ টি ইঁদুর নিধনের জন্য তাঁকে কৃষি বিভাগ জাতীয়ভাবে পুরস্কৃত করেছেন। উপহার দিয়েছেন ১৪ ইঞ্চি রঙিন টেলিভিশন। এছাড়াও ইঁদুর নিধনের জন্য স্থানীয়ভাবে বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা কৃষি বিভাগ থেকে পেয়েছেন জমিতে ওষুধ দেয়ার স্পেয়ার মেশিন, নগদ টাকাসহ নানা উপহার সামগ্রী। এবছর স্থানীয় কৃষি বিভাগ তাঁকে ১ হাজার ৫০০ টাকা উপহার দিয়েছেন।

আনোয়ার আরও জানান, এখন তিনি প্রতিদিন ২০ থেকে ৫০ টি ইঁদুর ধরেন। এ পর্যন্ত তিনি ৫৭ জনকে ইঁদুর ধরার কৌশল শিক্ষা দিয়েছেন। তাঁরা প্রত্যেকেই এখন ইঁদুর ধরাকেই জীবিকা নির্বাহের পেশা হিসেবে গ্রহণ করেছেন।

জয়পুরহাট জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক শফিকুল ইসলাম জানান, ইঁদুরের হাত থেকে ফসল রক্ষা করাটা এখন বেশ দুষ্কর। প্রতিবছর উৎপাদিত ফসলের ১০ থেকে ১৫ ভাগ ফসল যাচ্ছে ইঁদুরের পেটে। বিষ প্রয়োগসহ নানান কৌশলেও কাজ হচ্ছে না। কিন্তু অতি সহজ পদ্ধতিতেই এই অসাধ্য সাধন করে যাচ্ছেন আনোয়ার। গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার স্বীকৃতিস্বরূপ জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন আনোয়ার। আগামীতে তার জন্য সরকারি সহযোগিতার ব্যবস্থা করা হবে।



All Bangla Newspaper
ফেসবুকে আমরা
error: Content is protected !!