মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০১:০৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
পটুয়াখালীতে প্রগতি লেখক সংঘের কবি আড্ডা অনুষ্ঠিত গলাচিপায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আহসানুল হক তুহিন পুনরায় নির্বাচিত খালেদা জিয়াকে স্লো পয়জনিং বিএনপির লোকেরাই করতে পারে : কাদের নৌকার বিপক্ষে একটা ভোট গেলে লাশ পড়বে ৫টা, ছাত্রলীগ নেতার হুমকি জয়পুরহাট-সহ উত্তরের জেলা গুলোতে জেঁকে বসেছে শীত ও ঘন কুয়াশা! নওগাঁয় ভোটের মাঠে চেয়ারম্যান পদে পঞ্চমুখী লড়াই  ডিমলা উপজেলার কৃষকরা ভুট্টা চাষে আগ্রহী  গলাচিপা পৌরসভা নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর সমর্থনে কেন্দ্রীয় সেচ্ছাসেবক লীগের জনসংযোগ।  লক্ষ্মীপুরে বাবা চেয়ারম্যান, চার ভাইবোন হতে চান মেম্বার ‘মু‌জিব কোট খুইল্লা ও‌সিরে গুতাই‌ছি’
ঘোষণা :

খুলনায় বিএনপির সমাবেশে পুলিশের ‘লাঠিচার্জ’

খুলনা মহানগরে বিএনপির সমাবেশে পুলিশের টিয়ার শেল ও লাঠিচার্জে অন্তত ৭১ নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন বলে দলীয় নেতারা জানিয়েছেন। এ সময় পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নগরীর কেডি ঘোষ সড়কে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে সোমবার দুপুর ১২টার দিকে এসব ঘটনা ঘটে।খালেদা জিয়ার মুক্তি ও উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ যেতে দেয়ার দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে দুপুরে সমাবেশ ডাকে নগর ও জেলা বিএনপি। খুলনা মহানগর বিএনপি সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু জানান, বেলা ১১টার দিকে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে নেতা-কর্মীরা জড়ো হতে থাকেন। এ সময় তাদের সমাবেশে যেতে বাধা দেন খুলনা সদর থানার ওসির নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা। পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে সাড়ে ১১টার দিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও মহানগর সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জুর সভাপতিত্বে সমাবেশ শুরু হয়।

বিএনপি নেতাদের অভিযোগ, পুলিশ হঠাৎ চড়াও হয়ে নেতা-কর্মীদের ওপর বেপরোয়া লাঠিচার্জ শুরু করে। দফায় দফায় হামলা চালায় পুলিশ। এতে মহানগর বিএনপির সভাপতিসহ ৭১ নেতা-কর্মী আহত হন। ঘটনাস্থল থেকে বিএনপি নেতা শেখ জামিরুল ইসলাম জামিল, মেহেদী হাসান সোহাগ, হেদায়েত হোসেন হেদু, মোস্তফা ও জাহাঙ্গীর হোসেনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। বিএনপি নেতা মঞ্জু বলেন, ‘পুলিশ অতি উৎসাহী হয়ে মারমুখী আচরণ করেছে। হামলা-মামলা করে পুলিশ আমাদের দমাতে পারবে না। খুলনার জনগণ রক্ত দিতে প্রস্তুত। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন বিএনপি তাদের নেত্রীর মুক্তির জন্য যেকোনো আন্দোলন করতে পারে। সেখানে পুলিশ আক্রমণ করতে পারবে না। অনুমতি দেয়ার পরও পুলিশ আমাদের ওপর চড়াও হয়েছে।’ মঞ্জু জানান, নেত্রীর মুক্তির জন্য মানবিক কর্মসূচির আয়োজন করে বিএনপি। সকাল থেকে প্রশাসন কার্যালয় ঘিরে রাখে। পুলিশকে তিনি সরে যাওয়ার অনুরোধ করেন। পুলিশ তা না করে নেতা-কর্মীর ওপর হামলা করে। এ সময় জনতার রোষে পুলিশ পিছু হটতে বাধ্য হয়। পরে আবার তারা সমাবেশ শুরু করে। তিনি বলেন, ‘সোয়া ১২টার দিকে পুলিশ আবারও হামলা চালায়। নেতা-কর্মীদের সরে যাওয়ার জন্য গুলি করার হুমকি দেয় পুলিশ। আমাকেও গুলি করার হুমকি দেয়। তৃতীয় দফায় তারা সিনিয়র নেতাদের ওপর বর্বরোচিত হামলা চালায়। পুলিশ বিএনপির গণতান্ত্রিক ও মানবিক কর্মসূচিতে তাণ্ডব চালায়। পুলিশের এমন অসভ্য ও অমানবিক আচরণ জনগণ মোটেই সমর্থন করে না।’

খুলনার পুলিশ কমিশনারের উদ্দেশে মঞ্জু বলেন, ‘কার নির্দেশে এবং কাকে খুশি করার জন্য এ ধরনের নগ্ন হামলা চালিয়েছেন? একদিন তার জবাব দিতে হবে। সেদিন আর বেশি দূরে নয়। একটি একটি করে বিচার করা হবে। ‘সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে খালেদা জিয়াকে মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করতে চাচ্ছে। তাকে সুচিকিৎসা থেকে বঞ্চিত করে রেখেছে। কারাগারে সঠিক চিকিৎসা না হওয়ায় বর্তমানে তার অবস্থা অত্যন্ত সংকটাপন্ন।’ সর্বোচ্চ ত্যাগ শিকারের জন্য নেতা-কর্মীদের প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা মঞ্জু।

সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন খুলনা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমির এজাজ খান, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি, মীর কায়সেদ আলী, শেখ মোশাররফ হোসেনসহ অনেকে।

বিএনপির সমাবেশে হামলার অভিযোগের বিষয়ে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসান আল মামুন বলেন, ‘এই মুহূর্তে কিছু বলা সম্ভব নয়।’



All Bangla Newspaper
ফেসবুকে আমরা
error: Content is protected !!