শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০৪:৫২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ঈদকে সামনে রেখে সাড়ে ৫শত দরিদ্র মানুষের মাঝে শাড়ী লুঙ্গি বিতরণ করলেন রুপপুরের বকুল যৌন উত্তেজক সিরাপ তৈরির কারখানায় অভিযান, ৫ লাখ টাকা জরিমানা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে অভিনন্দন জানিয়ে শেখ হাসিনার চিঠি জয়পুরহাটে গণপরিবহন চালুর দাবিতে শ্রমিকদের ০৩ দফা কর্মসূচী নাটোরে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ন্যায্যমূল্যে তরমুজ বিক্রির উদ্বোধন আমতলীতে সরকারী সম্পত্তি দখলে মেতে ‍উঠছে ভূমিদস্যুরা বেপরোয়া  পিকআপের ধাক্কায় প্রাণ গেলো  অটোভ্যান চালকের ৩দফা দাবিতে পাবনা জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের বিক্ষোভ মিছিল পালিত দুমকিতে অগ্নিকান্ডে ৩টি পরিবার নিঃস্ব নাটোরে শ্রমিক দিবস পালিত
ঘোষণা :

জলাধার সৃষ্টির নামে চলছে হরিলুট,হুমকিতে কুয়াকাটা বেড়িবাঁধ ও স্থানীয় বাসিন্ধারা।

স্টাফ রিপোর্টার::-সাগর কন্যা কুয়াকাটার বেড়িবাঁধের বাহিরে সৈকতের লাগোয়া কোন উন্নয়ন কর্মযজ্ঞের অনুমতি না থাকলেও হাতে নেয়া হয়েছে প্রায় ৪ কোটি টাকার প্রকল্প।একদিকে চলছে সৈকত সূরক্ষার কাজ অন্য দিকে চলছে প্রকল্পর উন্নায়ন এর নামে টাকা লোপাটের হরিলুটের কাজ।

জানা গেছে,কোন প্রকার অনুমতি ছাড়াই লেক নিমার্ণের নামে পরিত্যক্ত জলাধারের বালু উত্তোলন বিভিন্ন প্রকল্পর ভড়াট কতাজ চালাছেন নব নির্বাচিত পৌর মেয়র।দরপত্র বা প্রাকল্পিত ব্যায়ের অর্থের উৎস কিন্বা নকশা ছাড়াই নিজের খেয়াল খুশি মতন লেক নিমার্ণের অবৈধ ভাবে ড্রেজার বসিয়ে গণশৌচাগার ও শেখ রাসেল পার্ক এবং রাখাই মার্কেটের নিমার্ণে বালু ভড়াটের কাজ চলছে।

তাছাড়াও জলাধারের পাশে এক প্রভাবশালীর ব্যাবসায়ীক আবাসিক হোটেলের সুবিধার্থে৫০ ফুটের রাস্তা নিমার্ণের কাজে বালু ভড়াট করছেন পৌর মেয়র।অপরদিকে জলাধার লাগোয়া ট্যুরিজম বোর্ডের অর্তায়নে নির্মিত ”ট্যুরিজম পার্কটি পূণাঙ্গভাবে চালু হয়নি। মুজিব শতবর্ষে ২০২০ সালের ১০ মার্চ পার্কটি আনুষ্ঠানিক উদ্ধোধন করা হয়্নকশা অনুযায়ী ট্যুরিজম পার্ক নির্মিত হওয়ার কাঙ্কিত সেবা পাচ্ছেনা পর্যটকরা।এ পার্কটির আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্ধোধন করেন পটুয়াখালীর জেলা প্রশাসক জনাব মতিউর ইসলাম চৌধুরী।

ট্যুরিজম পার্কটি পূণাঙ্গভাবে চালু না হলেও ফের এ পার্কটির পাশে আরেকটি লেক (জলাশয়) কারার কাজে নেমেছেন পৌর মেয়র আনোয়ার হাওলাদার। তাছাড়া জলাশয়ের বেড়িবাঁধের ভেতরে ও বাহিরে প্রায় ৫ একর ভ’মি দখলে নিয়েছেন প্রভাবশালী জাপা নেতা।আর এ জলাধারার জমির দখলের নেতৃত্বে ছিলেন বর্তমান মেয়র । আর এ উচ্ছেদ অন্তত ১৬ টি পরিবারকে উচ্ছেদ করা হয়েছে বলে ইতি পূর্বে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশ করা হয় । লেক বা জলাধারা ও উচ্ছেদ কৃত জমি গুলোর মালিক পাউবে। জানা যায় পাউবের অনুমতি ছাড়াই লেক নিমার্ণের নামে চলচে বহুমুখী নিজস্ব উন্নয়ন প্রকল্প। ৎ

সার্বিক বিষয়ে কুয়াকাটা হোটেল-মোটেল ওনার্স এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো.মোতালেব শরীফ জানান,জেলা প্রশাসন কর্তৃক নির্মিত ট্যুরিজম পার্ক নকশা অনুযায়ী না করায় পূর্নতা পায়নি ট্যুরিজম পার্কটি।

সাবেক মেয়র আবদ্দুল বারেক মোল্লা বলেন,বেড়িবাঁধের বাহিরে কোন প্রকার উন্নায়ন প্রকল্প নেয়া ঝুঁকিপূর্ন। দরপত্র ছাড়া ৪ কোটি টাকার প্রকল্প হরিলুট ছাড়া আর কিছুই না। জাপা নেতার ব্যাবসায়ীক সুবিধার জন্য এ প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে বলে তিনি মনে করেন ।

উপজেলা নির্বাহী আবু হাসনাত মো.শহিদুল হক বলেন, এ জলাধার ব্যাবহারের লিখিত কোন অনুমতি দেয়া হয়নি।

এ বিষয়ে পাউবের প্রকৌশলী শওকত ইকবাল মেহরোজ জানান,জলধারা বালু উত্তলন বা বিক্রয় এর কোন বিষয়ে তিনি অবগত নন ।

সার্বিক বিষয়ে পৌর মেয়র আনোয়ার হাওলাদার বলেন,কুয়াকাটার যেসব খাস জমি রয়েছে তাতে দৃষ্টিনন্দন কর্মকান্ড করতে জেলা প্রশাসকের অনুমতি রয়েছে।তবে পানি উন্নয়নের কোন অনুমতি আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি কোন মন্বব্য করেননি। কুয়াকাটার স্থানীয় বাসিন্ধা দের ভিতর সার্বিক বিষয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃস্টি হয়েছে ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা

Archives

error: Content is protected !!