সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ০৭:৪৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ঘোষণা :

আমতলীতে সরকারী সম্পত্তি দখলে মেতে ‍উঠছে ভূমিদস্যুরা

আমতলী (বরগুনা)প্রতিনিধি: আমতলী ‍উপজেলায় সরকারী সম্পত্তি দখলের মহোৎসব চলছে। লোক চোখে প্রকাশ্য দিবালকে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নাকের ঢগায় দখল চললেও অদৃশ্য কারনে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন আছে নীরব। দখল বানিজ্য নিয়ে জনমনে চলছে উৎকন্ঠা ও নানান প্রম্ন দেখা দিয়েছে।

সরকারী সম্পত্তি ভূমি দস্যুদের দখলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ উদাসিন! এলাকাবাসী অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাচ্ছেনা এতে সরকারের কোটি কোটি টাকা মূল্যের সম্পত্তি প্রতিনিয়ত দখল হয়ে যাচ্ছে।

জানা গেছে, বরগুনার আমতলী উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নের গুলিশাখালী ভুমি অফিস সলগ্ন ভূমি অফিসের বাউন্ডারীর মধ্যে মো. মহিন নামের এক ব্যক্তি প্রায় ৫ শতাংশ জমি প্রকাশ্য দখল করে ভূমি কর্মকতার্দের চোখের সামনেই ঘর উত্তোলনের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

মনে হয় যেন গুলিশাখালী ভূমি অফিস কর্মকতার্রাই ঘর উত্তোলন করতেছেন। এ ছাড়াও গুলিশাখালী বাজারের মধ্যে সরকারী ১ নং খতিয়ানের জমি যে যারমত দখল করে স্থাপনা করে কেহ পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন কেহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান করে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বাজারের মধ্যে সরকারী হাটের জমিতে মো.রিপন পঞ্চায়েত,জেসমিন বেগম প্রকাশ্য ঘর উত্তোলন করছেন এ যেন দেখেও দেখার কেহ নাই।

এতে সরকার হারাচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকার রাজস্ব। এ ভাবে দখল বানিজ্য চললেও সরকারী সম্পত্তি রক্ষনা বেক্ষনে কর্মকতার্দের কোন পদক্ষেপ নাই। ভূমি দস্যুদের অশুভ তৎপরতা ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসিনতার কারনে সরকারের কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি বেহাত হয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত ।

এ ব্যাপারে ঘর উত্তোলন কারী মো. মহিন মিয়া মুঠোফোনে বলেন, আমি দীর্ঘদিন যাবৎ এখানে বসবাস করি। বর্ষাকাল আসছে তাই ঘর উত্তোলন করতেছি।

এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের আধিকারিক গুলিশাখালী ইউনিয়ন ভূমিসহকারী কর্মকতার্ তহসিলদার মো.দেলোয়ার হোসেন মুঠোফোনে বলেন আমাকে বদলী করা হয়েছে আমি কিছু জানিনা। আর যাকে ভুমি সহকারী তহসিলদার গুলিশাখালী ভূমি অফিসে দেওয়া হয়েছে সুভাস চন্দ্র শীল সে মুঠোফোনে বলেন আমি এখোনো চার্জ বুঝে পাই নাই।

সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের স্থানীয় হাকিম আমতলী উপজেলা নিবার্হী অফিসার মো. আসাদুজ্জামান গনমাধ্যমকে বলেন, ঘর উত্তোলনের কাজ বন্দ করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আজ শনিবার ও কাজ করতেছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন এখেনি সহকারী ভুমি কর্মকতার্কে পাঠিয়ে কাজ বন্ধ করে দিতেছি।

বরগুনা জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমান মুঠোফোনে বলেন, সরকারী সম্পত্তি রক্ষার জন্য কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা

Archives

error: Content is protected !!